Monday , May 27 2024
Home / Countrywide / ফরমালিন দিয়েও লাভ হবে না, বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কার মতো হতে আর কতদিন সময় লাগবে জানালেন রেজা কিবরিয়া

ফরমালিন দিয়েও লাভ হবে না, বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কার মতো হতে আর কতদিন সময় লাগবে জানালেন রেজা কিবরিয়া

বাংলাদেশের একজন সুপরিচিত সোর্থনীতিবীদ হলেন রেজা কিবরিয়া। এছাড়াও তিনি একজন রাজনকৈতিক ব্যক্তিত্ব। তার কন্যা নাজলী কিবরিয়া বর্তমানে বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত আছেন। সম্প্রতি রেজা কিবরিয়া তার এক বক্তব্যে বলেছেন আইএমএফ’র কাছে যাওয়া কোনো সুখবর নয়, ফরমালিন দিয়েও আর লাভ হবে না।

আমি ছয় বছর আগে শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে সতর্ক করেছিলাম। আমি ভেবেছিলাম বাংলাদেশের শ্রীলঙ্কার মতো হতে আরও আড়াই বছর লাগবে। কিন্তু, এই সময়ে আইএমএফকে (আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল) ডাকা অশুভ মনে হচ্ছে। দেশ শ্রীলঙ্কার দিকে অনেক দূর এগিয়ে গেছে, না হলে আইএমএফ ডাকা হতো না। আমি মনে করি এই সরকারকে সরানোর জন্য সময় খুব কম। তাদের অপসারণ না হলে দেশের মানুষ, ব্যবসায়ীরা অনেক সমস্যায় পড়বে, বাংলাদেশের অনেক ক্ষতি হবে। এমনকি তাদের এক সপ্তাহ বাড়তি রাখাও দেশের জন্য বিরাট ক্ষতি। তারা প্রতিনিয়ত দেশের ক্ষতি করছে। রেজা কিবরিয়া গণঅধিকার পরিষদের আহ্বায়ক বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. অনেকেই জানেন, রেজা কিবরিয়া আইএমএফের উচ্চপদে কর্মরত ছিলেন।

সেখানে কী ধরনের কাজ করেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি প্রথম ১০ বছর অর্থনীতিবিদ ছিলাম। আমি এক বছর আইএমএফ এক্সিকিউটিভ বোর্ডে সৌদি নির্বাহী পরিচালকের (সৌদি আরব প্রতিনিধি) প্রযুক্তিগত সহকারী ছিলাম। আমি তার বক্তব্য লিখতাম, তিনি না থাকলে আমাকে তাদের প্রতিনিধি হিসেবে বোর্ডে পাঠানো হতো। আমি আইএমএফ বোর্ডেও অংশ নিয়েছি। আমি IMF এ থাকাকালীন বিভিন্ন মিশনে ছিলাম। আমি একটি দেশ পর্যবেক্ষণ করতে বা বিশ্লেষণ করতে যেতাম যদি একটি দেশ অর্থ চায়। আমি বোর্ডের কাগজ লিখতাম যার ভিত্তিতে নির্বাহী বোর্ড ঋণ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়। এই প্রেক্ষাপটে, আইএমএফের কোনো কর্মচারী কখনো কাউকে আশ্বস্ত করতে পারে না যে আমরা অর্থ দেব কারণ এটি কারও পৈতৃক সম্পত্তি নয়। প্রথমে সরকার আইএমএফের কাছে ঋণ চাওয়ার কথা স্বীকার না করলেও পরে স্বীকার করে। অর্থমন্ত্রী পরে বলেছিলেন যে স্বীকার না করা একটি কৌশল ছিল। এটা ঠিক কি ধরনের কৌশল ছিল? “আমি বুঝতেও চাই না। এটা বোঝার কিছু নেই। বুড়ো ভৃত্য (রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের) কেষ্ট সম্পর্কে বলতেন- নির্বোধ খুবই বোকা। আমি তাদের কথোপকথনে এতটুকুই ভাবতে পারি। তারা না বুঝেই কথা বলে। .’ আইএমএফের ‘শর্তের’ কারণে জ্বালানি তেলের ভর্তুকি তুলে নেওয়ার বিষয়ে একেক মন্ত্রী একেক রকম বক্তব্য দিয়েছেন।রেজার বক্তব্য: সত্যি কথা বললে, কখন কাকে কী বলেছিল তা মনে রাখতে হবে না। মিথ্যা বলুন, আপনাকে মনে রাখতে হবে আপনি কখন কার কাছে মিথ্যা বলেছেন। সেখানেই সমস্যা রয়েছে। আইএমএফ কিছু পূর্বশর্ত দিয়েছে। আমি অসম্ভব বলছি না। তবে, প্রোগ্রামের আলোচনা এখনও শুরু হয়নি। আইএমএফ প্রথমে পরিসংখ্যান পরীক্ষা করে তারা আলোচনার যোগ্য কিনা তা দেখতে। সবকিছু মিথ্যা হলে আইএমএফ আলোচনায় নামবে না। ধরা যাক- জিডিপি পরিসংখ্যান, মুদ্রাস্ফীতির পরিসংখ্যান সবই মিথ্যা। সবাই জানে। রিজার্ভের পরিসংখ্যান নিয়ে অনেক উদ্বেগ রয়েছে। সরকার $7 বিলিয়ন ডলার কেটেছে রাতারাতি বলছে, তারা ভুল গণনা করেছে। আমি জানি না এটা ইচ্ছাকৃতভাবে করা হয়েছে নাকি অযোগ্যতার কারণে। তবে, এটা ঠিক আমাদের পরিসংখ্যান যা নিয়ে আইএমএফের সন্দেহ আছে। আমি বলতে পারি পরিসংখ্যান না থাকলে আলোচনা শুরু হবে না। সঠিক

দেশের অর্থনীতি খুব খারাপ না হলে আইএমএফ এসে ঋণ দিত না। ঠিক? জবাবে রেজা বলেন, ‘আইএমএফ হলো হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসকের মতো। রোগীকে বাঁচানোই তার কাজ। তারা রোগীকে বাঁচানোর জন্য খুব কঠোর চিকিত্সা, খুব কঠোর ওষুধ দেয়। আর বিশ্বব্যাংক হচ্ছে জিপি (জেনারেল প্র্যাকটিশনার)। তিনি ইনজেকশন দেন, ওষুধ দেন। বিপদে না পড়লে সাধারণত কেউ জরুরি বিভাগে যান না। জাতিকে বড় সুখবর দিচ্ছে সরকার যে আমরা আইএমএফের কাছে যাচ্ছি! এটা ভালো খবর না। আমি IMF এ কাজ করেছি। সেই অভিজ্ঞতা থেকে বলি, IMF-এর লোকেরাও বোঝে যে, একটা দেশ বড় বিপদে না পড়লে সেখানে যায় না। আইএমএফ এমন কিছু শর্ত দেবে যা দেশের জন্য কঠিন হবে, সাধারণ মানুষের ওপর পড়বে, সরকারের জনগণের ওপর পড়বে। যাইহোক, তারা কাউকে আঘাত করার জন্য এটি করে না, তারা নিশ্চিত করতে চায় যে অর্থ সেই দেশে ফেরত দেওয়া হয়। কারণ এই তহবিল তৈরি হয়েছে সব দেশের টাকা দিয়ে। অন্য দেশের কাছে তাদের ক্ষমা চাইতে হবে। আইএমএফ এখনও শ্রীলঙ্কায় আলোচনা শুরু করেনি। কোনো আলোচনা শুরু করেননি। যদি তারা আইএমএফ এবং বিদেশী বিনিয়োগকারীদের আস্থা না দেখাতে পারে যে তারা শর্ত রাখতে ইচ্ছুক, তারা কিছু সংস্কার না করে ঋণ দেবে না। আলোচনা করবেন না। বাংলাদেশের ক্ষেত্রে আইএমএফের কিছু মানসম্মত শর্ত রয়েছে যা পূরণ করা কঠিন হবে। এক নম্বর হল: বাজেট কঠোর করা, বাণিজ্য ঘাটতি কমানো, ব্যয় কমানো, কর বৃদ্ধি এবং অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হার কমানো। কারণ, প্রবৃদ্ধির হার বেশি হলে আমদানি বেশি হয়। প্রবৃদ্ধির হার কম হলে আমদানি কমে যায় এবং রিজার্ভ পুনরুদ্ধার হয়। তাছাড়া ব্যাংকিং খাতের সংস্কারের বিষয়টি তো আছেই। আইএমএফ খুব বিনয়ী ভাষায় কথা বলে। যেমন: তারা বলে গভর্ন্যান্স উন্নত কর। মানে এই সরকারকে বলা চুরি একটু কমাতে। এই সরকার আছে চুরি করার জন্য। তাই তাদের এ শর্ত মেনে নেওয়া যায় না। তারা আগের চুরিকে ন্যায্যতা দিয়েছে, নতুন চুরির ব্যবস্থা করেছে। তাই তাদের জন্য আইএমএফের শর্ত মেনে চলা খুবই কঠিন হবে। তাদের সদিচ্ছা আছে কিনা আমারও সন্দেহ। সাড়ে চার হাজার কোটি ডলারের কথা বলা হচ্ছে। কিন্তু তা এক কিস্তিতে আসে না। বিভিন্ন tranches বলা হয়. হয়তো চার কিস্তিতে আসবে। প্রতিটি কিস্তির আগে তারা পরবর্তী কিস্তি পাওয়ার জন্য যা করা দরকার তা করা হয়েছে কিনা তা দেখতে একটি পর্যালোচনা করবে। তাদের পর্যালোচনা মিশন যদি বলে যে, না, কিছুই করা হয়নি; তারপর বলে, আমরা বাকি ঋণ বাতিল করব। বকেয়া ঋণ বাতিল দেশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বিশ্বব্যাংক, এডিবি, আইডিবি, ইইউ তাদের বাজেট সাপোর্ট ঋণ দেয় আইএমএফের ঋণের ভিত্তিতে। তারা যদি দেখে যে আইএমএফ সরকার থেকে সরে গেছে, তারা অবশ্যই প্রত্যাহার করবে এবং তাদের সাহায্য আসবে না। আমি শুনছি, IMF থেকে ৪.৫ বিলিয়ন ছাড়াও, অন্যদের (World Bank, ADB, JICA ইত্যাদি) থেকে আরও ৩.৫ থেকে ৪.৫ বিলিয়ন চাওয়া হচ্ছে। তারা দেখবে আইএমএফ কী করছে।

এর আগে রেজা কিবরিয়া বলেন, সরকার আইএমএফ নিয়ে মিথ্যাচার করেছে। অস্পষ্টভাবে নয়, মিথ্যা বলার সংজ্ঞা জানতে চাইলে রাজার পাল্টা প্রশ্ন হলো- একজন অদক্ষ, অজ্ঞ ব্যক্তি যদি কথা বলেন, তাকে আপনি কী ধরনের মিথ্যা বলবেন? IMF কিভাবে কাজ করে কে বুঝতে পারে না; তিনি কি বলতে পারেন যে আইএমএফ আমাকে আশ্বাস দিয়েছে যে তারা অর্থ প্রদান করবে? IMF কে আশ্বাস দিয়েছে?

তার মানে সরকারী যারা আইএমএফের কথা বলছে, তারা বিষয়টি বোঝে না? আমি বুঝতে পারছি না। আপনি যদি আমাদের IMF-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালককে জিজ্ঞাসা করেন, তিনি শব্দ দিয়ে যেকোনো বাক্য শেষ করবেন – IMF নির্বাহী বোর্ডের অনুমোদন সাপেক্ষে। এর মানে হল যে আমি যা বলছি তা শুধুমাত্র ঠিক আছে যদি আইএমএফ এক্সিকিউটিভ বোর্ড বলে যে এটা ঠিক আছে। ব্যবস্থাপনা পরিচালক যদি বলেন, আমি বাংলাদেশের পাশে থাকব, এটা অস্পষ্ট কথা। কার্যনির্বাহী বোর্ড নথিপত্র দেখে সিদ্ধান্ত নেবে। IMF কর্মীদের অনেক ক্ষমতা আছে। তারা নির্বাহী বোর্ডের কাছে এমনভাবে উপস্থাপন করতে পারে (প্রতিবেদন) যাতে ঋণটি প্রত্যাখ্যাত হতে পারে। আমি জানি না কি হবে (এই ক্ষেত্রে)। তাই, যারা বলে আইএমএফ আমাদের টাকা দেবে, তাদের কাছে দিল্লি অনেক দূরে। হতে পারে, কিন্তু এই সিদ্ধান্ত এখনো হয়নি। আপনি যদি প্রধানমন্ত্রীকে ভুল কিছু বলেন বা মিথ্যা বলেন, সেটা আপনার দোষ। আইএমএফ ঋণ প্রক্রিয়া দেখতে আপনি নিজেও গুগল করতে পারেন। এটা জটিল না. আপনাকে আমার বা আইএমএফের কোনো স্টাফের কথা বিশ্বাস করতে হবে না।’

তুমি বলো দেশ রসাতলে গেছে। নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় গিয়ে দেশ পরিচালনা করতে চান! ‘অতল গহ্বরে চলে গেছে’ এমন একটি দেশ কীভাবে ঠিক করবেন? এটা এখনও ঠিক করা যেতে পারে. আমি মনে করি দেশকে ইচ্ছাকৃতভাবে ধ্বংস করার জন্য একটি পরিকল্পনা তৈরি করা হচ্ছে যাতে পরবর্তীতে যে কেউ ক্ষমতায় আসে তাকে একটি টিকিং টাইম বোমার মুখোমুখি হতে হয়। অর্থনৈতিক অবস্থা এমন হবে যে (পরবর্তী সরকারকে) স্থিতিশীলতা আনতে হামাগুড়ি দিতে হবে। এই সরকারে যে পচন শুরু হয়েছে তা আমরা দেখছি। বাজারে ডলার পাওয়া যাচ্ছে না। ব্যবসায়ীরা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য আমদানি করতে পারছেন না। ডলারের রেট ১২২-এ আটকে আছে। এটা স্পষ্ট যে সরকারের অনেক জায়গায় সমস্যা হচ্ছে। তেলের দাম একবারে ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি বাংলাদেশের ইতিহাসে নয়, বহু দেশের ইতিহাসে দেখা যায়নি। আমি জানি না তারা এই ধারণা কোথা থেকে পেয়েছে। এই সরকারের অনেক কিছুই বুঝি না। আমি বলি ফরমালিন অর্থনীতি। কিন্তু ফরমালিনেরও একটা সীমা আছে। ফরমালিন কিছুক্ষণের জন্য তাজা রাখতে পারে, কিন্তু এক পর্যায়ে সব ভেঙ্গে যায়। কথায় বলে, মাথা থেকে মাছ পচে যায়। অর্থনীতি এখন এমনভাবে পচে গেছে যে কিছুই পরিচালনা করা যাচ্ছে না। ফরমালিনের আর কোনো ব্যবহার নেই, এর দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছে সারা বিশ্বে। এই সরকার সম্পূর্ণ পচা। তারা দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করে, মানুষকে কষ্ট দেয় এবং তারপর চলে যায়। আমার আশঙ্কা, তাদের পতনে দেরি হলে দেশের বিরাট ক্ষতি হবে। তাদের খুব দ্রুত ক্ষমতাচ্যুত করা দরকার। আপনারা জনগণকে রাস্তায় নামানোর কথা বলেন, সরকারকে উৎখাতের জন্য গণঅভ্যুত্থানের কথা বলেন। এতটাই বেড়েছে জ্বালানির দাম। মানুষ কি রাস্তায় নামছে? নেমে আসবে। এ সরকারের কাছে দেশের মানুষ খুব একটা আশা করে না। কারণ, এটা তাদের সরকার নয়। তারা কেউই এই সরকারকে ভোট দেননি। তারা মানুষকে গুলি করবে, যেমন ভোলাতে গুলি করে দুইজনকে মেরেছে। আমি বলতে চাই যারা এসব হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে তাদের ক্ষমা চাইতে হবে। যেই নির্দেশ দিয়েছে এবং যেই করেছে, তাদের ক্ষমা চাইতে হবে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আওয়ামী লীগ সর্বদা রক্তক্ষয়ী পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে প্রস্তুত থাকায় জনগণ ভীত। তারা বলছেন, রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করব। মানে, তাদের হেলমেট বাহিনী, জনগণের বিরুদ্ধে খুনিদের ছেড়ে দেবে। নিরীহ মানুষকে দমন ও গুলি করা তাদের সংস্কৃতিতে।

আপনার নবগঠিত ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’ নিয়ে বিরোধীদের প্রশ্ন, এটা কি ক্ষমতা ভাগাভাগি জোট? আপনাদের মধ্যে ঐক্য আছে কি না তা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। মাহমুদুর রহমান মান্না, নুরুল হক নূর এবং বিএনপি সম্পর্কে আপনার বক্তব্যের মধ্যেও পার্থক্য দেখা গেছে। আপনি বলেছেন, খালেদা জিয়া বাংলাদেশের একজন সত্যিকারের শ্রদ্ধেয় ব্যক্তি…’আমি খালেদা জিয়াকে সম্মান করি এবং মনে করি তার সুচিকিৎসা দেওয়া আমাদের জাতীয় কর্তব্য। এটা কোনো দলীয় বিষয় নয়। একজন বীরের বিধবাকে চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করা একটি গুরুতর অন্যায়। আমরা যদি তার সঠিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে না পারি তাহলে আমাদের জাতির ওপর কলঙ্ক থেকে যাবে। পৃথিবীর যেখানে খুশি তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা উচিত। গত ৫২ বছর ধরে দেশের রাজনীতি যেভাবে চলছে তাতে আমি সন্তুষ্ট নই। বিএনপিও (ক্ষমতায়) ছিল, জাতীয় পার্টিও ছিল। এই দেশে অনেক কিছুর পরিবর্তন হওয়া উচিত। জনগণকে আশ্বস্ত করতে আমরা সাতটি সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধ করেছি, আমরা এই সরকারকে উৎখাত করব এবং ইনশাআল্লাহ সুষ্ঠু নির্বাচন করব। আমরা এই রাষ্ট্রের মালিকানা জনগণকে ফিরিয়ে দেব। নির্বাচনে ভোট দেওয়া যে গুরুত্বপূর্ণ! মানুষ একে এত গুরুত্ব দেয়! আমাদের গ্রামে মানুষ ঠান্ডায় দুই-তিন ঘণ্টা ভোট দিতে দাঁড়িয়েছে। তারা সাড়ে ৬টা থেকে দাঁড়িয়ে ছিল এবং সাড়ে ৮টায় দরজা খোলা এবং ব্যালট বাক্স ভর্তি দেখতে পায়। এক পর্যায়ে দেশের ধনী-গরিব সমান, যে মুহূর্তে তারা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে। আওয়ামী লীগ একটি বিষাক্ত দল। এখানে আমরা এমন একটি দলকে ক্ষমতায় আনব যেখানে সরকার জনগণকে ভয় পাবে। বৃহত্তর ঐক্যের মাধ্যমে আমরা তা করব। আমরা যখন ক্ষমতায় আসি, দেখবেন অনেকেই আমাদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন, আমার বিরোধিতা করছেন, সাংবাদিকরা প্রশ্ন করছেন। এই স্বাভাবিক. এটাই গণতন্ত্রের নিয়ম। আপনি বাড়িতে গিয়ে আমাকে কঠিন প্রশ্ন করে মনের শান্তি নিয়ে ঘুমাতে পারেন। কারণ, সাদা পোশাক পরা কাউকে পাঠাব না, ছাত্র সংগঠনের কাউকে ভয় দেখানোর জন্য পাঠাব না।’

আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার ছেলে রেজা কিবরিয়া গণহত্যার প্রতিশোধ নিতে রাজনীতিতে নেমেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। আপনি রাজনীতিতে কতদিন থাকবেন নিয়ে অনেকেরই সন্দেহ, পাশাপাশি এটাও বলা হয় যে দেশহত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য রাজনীতিতে এসেছেন এমন ব্যক্তিকে জনগণ ভোট দেবে কিনা- এর রেজার সোজা উত্তর, ‘আপনি যদি আমাকে শেখ হাসিনার মতো মূল্য দেন, তাহলে। এটা ভাবতে পারে যে আমি মনে করি এই দেশে অনেক অবিচার আছে। আমার বাবা, যার এই দলে (আওয়ামী লীগ) থাকার কথা ছিল কিন্তু আসলে এই দলে ছিলেন না। তিনি আরেকটি আওয়ামী লীগে ছিলেন, যে দল জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে, যে দল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মতো একটি ব্যবস্থার জন্য লড়াই করেছে, যে দল জনগণের ভোটাধিকারের জন্য আন্দোলন করেছে। সেই আওয়ামী লীগ আর নেই। এখন লুটেরা আওয়ামী লীগ আছে। মানুষকে লুণ্ঠন ও নিপীড়ন করা ছাড়া তাদের আর কোনো উদ্দেশ্য নেই। তারা কী পরিমাণ অর্থ বিদেশে পাচার করেছে তার বিভিন্ন পরিসংখ্যান শুনছি। তবে কয়েকদিন পর তার প্রমাণ পাবেন। মানুষের এটা জানার অধিকার আছে।

রেজা কিবরিয়া জাতীয় পার্টিকে সরকারের পোষা বিরোধী দল বলেছেন। সমসাময়িক রাজনীতিতে দলের বিভিন্ন আন্দোলন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আশা করি তারা নিজেদের সংশোধনের চেষ্টা করবেন। এ পর্যন্ত তারা যা করেছে তাতে তারা দালাল চক্র হিসেবে জনগণের কাছে পরিচিত। এখন তাদের নিজেদের মুক্ত করার সুযোগ আছে। তাদের সুযোগ নেওয়া উচিত। তারা কি ১৪ দলীয় জোট থেকে বেরিয়ে আসতে পারবে বলে মনে করেন? “আমি জানি না তারা পারবে কি না। আমি আশা করি খারাপ লোকেরাও ভালো হতে পারে। তারা যদি এখন থেকে ভালো কাজ করে, তাহলে হয়তো মানুষ তাদের ক্ষমা করবে। কিন্তু, আমি নিশ্চিত নই যে আমি ক্ষমা করব কিনা। এই অত্যাচারীর সাথে সরকার, তারা জনগণের উপর অনেক অন্যায় করেছে। নির্যাতিতদের পক্ষে দাঁড়ানোর সুযোগ পেলে জনগণ অবশ্যই একটু ক্ষমা করবে। আপনাদের সরকারবিরোধী আন্দোলনে আপনি কি তাদের স্বাগত জানাবেন? আমি এখন বলতে পারছি না। তাদের কতটা বিশ্বাস করা যায় তা দেখার জন্য দল ও মঞ্চের সাথে কথা বলতে হবে।

সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচনের এখনো প্রায় দেড় বছর বাকি, সরকার পতনের কথা বলেন কীভাবে? আন্দোলনের মাধ্যমে করব। যখন নির্বাচন হবে, এই সরকার থাকলে, দেশের অর্থনীতি এমন এক পর্যায়ে নিয়ে যাবে যেখান থেকে পুনরুদ্ধার করতে ১৫-২০ বছর লাগবে। আমি এটা চাই না. আমি তাদের আগে পড়ে দেখতে চাই। সরকার নিজেই ষড়যন্ত্র করে ক্ষমতায় আছে। তাই তারা সবার মধ্যে ষড়যন্ত্র দেখতে পায়। আমি বললাম, মান্না ভাই বলেছেন, রব ভাই বলেছেন- আমরা এই সরকারের পতনের জন্য কাজ করছি। আমরা গোপনে কিছু করছি না। তাই এটা কোনো ষড়যন্ত্র নয়। ১৬ কোটি হোক আর ১৮ কোটি মানুষ আমাদের সঙ্গে আছে। এটা কি ষড়যন্ত্র?’ আপনি কি কোনো মূল্যে সরকারের পতন চান? “এমন কোনো পদক্ষেপ নেওয়া যাবে না যা আমাদের দেশের সুনাম ক্ষুন্ন করবে বা জনগণের ক্ষতি করবে। আমি চাই এই সরকার সরে যাক। অর্থনীতি ঠিক করার এখনও সময় আছে। আমাদের দেশ যদি শ্রীলঙ্কার পর্যায়ে থাকে, তাহলে তা হবে। খুব কঠিন। অন্ধকার। কোন আশা নেই।’ আপনি বহুবার অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের কথা বলেছেন। তিনি জাতিসংঘের অধীনে নির্বাচনের কথাও বলেছেন। এখন আপনি কী চান? যে কোনো নাম দেওয়া যেতে পারে। কিন্তু, মূল কথা হলো আমাদের দেশে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য একটি সুপ্রতিষ্ঠিত প্রক্রিয়া রয়েছে। নির্বাচন। এটা নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার। এটা পরীক্ষিত। এটাকে বাদ দেওয়ার কোনো মানে হয় না। একদলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন করার কোনো কারণ নেই, বিশেষ করে ঘৃণ্য, অবৈধ সরকারের অধীনে।

প্রসঙ্গত, বিশ্বজুড়ে মন্দার কারণে সাধারণ মানুষ পড়েছে সীমাহীন বিপাকে। সবকিছুর দাম ধরা ছোঁয়ার বাইরে চলে গিয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে বিশ্বজুড়ে মহামারির আশঙ্কা দেখা দিতে পারে। তাই এই সংকটময় অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে সাবই একযোগে কাজ করে যাচ্ছে।

About Shafique Hasan

Check Also

উড়ছে শকুন, যে কোনো সময় মানচিত্রে থাবা দেবে: শামীম ওসমান

নারায়ণগঞ্জ ৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান মাঝে মাঝে আলোচনায় উঠে আসেন। তিনি রাজনীতিতে দীর্ঘদিন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

uzaki-chan wa asobitai hentai hentaicity.org hentai dickgirl سكس مصرى نار جديد freetube18x.com الاباحية الحرة start up ph october 4 2022 teleseryena.com david licauco maria clara download porn videos indian creampieporntrends.com myhotmasala tamil office sex videos pimpmpegs.info home sexy video pirnstar hugevids.mobi x videos hd صور حب سكسي porndot.info سكس فلاحات مصريات tamilaunt pornvideox.mobi indian hindi xnxx heroines sex pornmovstube.net hiroen sex @monashiman javmobile.mobi saegusa chitose massage beeg pakistanixxxx.com sex videos x videos xvideo favroite list indian indianxtubes.com www xnxxx sex video com rape sex video in india makato.mobi desi.sex sexy picture dikhaiye video tubefury.mobi anty nude video please be careful with my heart episodes teleseryeepisodes.com 2good 2 be true