Tuesday , February 7 2023
Breaking News
Home / opinion / হঠাৎ ইসলামী ব্যাংকের এত টাকা দরকার কেন, আগে ধার দিতো এখন ধার নিচ্ছে কেন,এর কারণ দুটি:তুষার

হঠাৎ ইসলামী ব্যাংকের এত টাকা দরকার কেন, আগে ধার দিতো এখন ধার নিচ্ছে কেন,এর কারণ দুটি:তুষার

সম্প্রতি বাংলাদেশের সব থেকে বেশি আলোচনা সমালোচনার শিকার হয়েছে একটি ব্যাংকিং খাত। আর সেই ব্যাংকটি হলো ইসলামী ব্যাংক। এবার টাকা উঠতে নতুন এক পদ্ধতি হাতে নিয়েছে ব্যাংকটি। এবার এ নিয়ে একটি লেখনী লিখেছেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব আব্দুন নূর তুষার। পাঠকদের উদ্দেশ্যে তার সেই লেখনী তুলে ধরা হলো হুবহু:-

ইসলামী ব‍্যাংককে শেয়ার মার্কেট থেকে বন্ডে টাকা নেয়ার অনুমতি দিয়েছে বাংলাদেশ ব‍্যাংক। বন্ড শেয়ার না। এটা একধরনের ঋণ। আপনি বন্ড কেনা মানে আপনি ইসলামী ব‍্যাংককে ধার দিচ্ছেন। শেয়ার কিনছেন না।

যে ব‍্যাংক নিজেই টাকা ধার দেয় সে কেন পাবলিকের কাছ থেকে টাকা ধার নিচ্ছে?

হঠাৎ এই টাকা তার দরকার হচ্ছে কেন?

১.হয় তার কাছে এত ঋণ চাইছে লোকে যে সে দিয়ে কূল কিনারা পাচ্ছে না।

২.অথবা তার কাছে আমানতকারীদের আমানত ফেরত দেয়ার জন‍্য ক‍্যাশ টাকা নাই। সব টাকা ঋণ দিয়ে বসে আছে কিন্তু টাকা ফেরত আনতে পারছে না।সহজ কথা হলো কোন কোম্পানি তখনি বন্ড ছাড়ে যখন তার টাকা দরকার এবং এই টাকা সে অন‍্য কোনো উৎস থেকে পাচ্ছে না।

বন্ড বেচতে শেয়ার মার্কেট কেন?কয়েক দিন আগেই আমরা জেনেছি এরা বাংলাদেশ ব‍্যাংক থেকে বন্ডের বিনিময়ে টাকা নিয়েছে।মাথা খাটান।উত্তর পাবেন।

একটা প্রশ্ন। শেয়ার মার্কেটে লিস্টেড কোম্পানি শেয়ার না ছেড়ে বন্ড ছাড়ছে কেন?কারণ শেয়ারে মালিকানা দিতে হয়।বন্ডে মালিকানা দিতে হয় না।বন্ড ছাড়া মানেই হলো কোম্পানির হাতে যথেষ্ট নগদ নাই।তাহলে অসহায় লিজিং কোম্পানিগুলিকে বন্ড ছাড়তে দিচ্ছে না কেন?তাহলে তো টাকা ফেরত পেতো আমানতকারীরা।

প্রসঙ্গত, এ দিকে ইসলামী ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে উধাও হয়ে গেছে অনেকেই। আর সেই সব টাকার অঙ্ক অনেক বেশি বড়। তবে জানা গেছে এ নিয়ে সরকার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে অনেক। এখন দেখার বিষয় এটাই পাচার হয়ে যাওয়া সেই টাকা আর ফেরত আসে কি না।

About Rasel Khalifa

Check Also

আ.লীগকে হিরো আলমের চ্যালেঞ্জ, এ নিয়ে এবার মুখ খুললেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব

বাংলাদেশের সরকার এর দিকে বার বার আসছে নানা ধরনের চ্যালেঞ্জ আর হুমকি। আর এই কথা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *