Saturday , February 4 2023
Breaking News
Home / opinion / বাংলাদেশের রেমিটেন্স এর প্রায় অর্ধেকই বাংলাদেশ থেকে ভারতে রেমিটেন্স খেয়ে গেছে: পিনাকী

বাংলাদেশের রেমিটেন্স এর প্রায় অর্ধেকই বাংলাদেশ থেকে ভারতে রেমিটেন্স খেয়ে গেছে: পিনাকী

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক চালিকা শক্তির একটি বড় উৎস হল বৈদেশিক রেমিট্যান্স। এককথায় বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকা ঘুরছে বৈদেশিক রেমিটেন্স এর জন্য। বাংলাদেশের প্রবাসী শ্রমিকেরা প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা দেশে পাঠিয়ে থাকেন। কিন্তু প্রবাসীদের পাঠানো এই বিপুল পরিমান অর্থ কোথায় যায়, সেটা নিয়েও প্রশ্ন দেখা দিয়ে থাকে। কয়েকবছর ধরে একটি বিষয় সামনে আসছে- আর সেটা হল বিদেশে অর্থ পাচার। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতেও অনেক অর্থ চলে যায়। এবার এ বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি পোস্ট দিয়েছেন সমালোচক পিনাকী ভট্টাচার্য। তার পোস্টটি হুবুহু তুলে ধরা হলো-

সারা বিশ্বের বাংলাদেশের রেমিটেন্স এর প্রায় অর্ধেকই বাংলাদেশ থেকে ভারতে রেমিটেন্স খেয়ে গেছে।
বাংলাদেশের আনুমানিক ১ মিলিয়ন ভারতীয় শ্রমিকের ৯০% অবৈধভাবে কাজ করে। সুতরাং বাংলাদেশ থেকে ভারতে রেমিটেন্সের সিংহের ভাগ অবৈধ উপায়ে হয়, অর্থাৎ হুন্ডি। সুতরাং, বাংলাদেশে অবৈধ ভারতীয় শ্রমিকরা হুন্ডি শিল্পের প্রধান চালিকা শক্তি।
সরকার ও তার সহযোগীদের দ্বারা বিদেশে ব্যাপক অবৈধ ফরেক্স স্থানান্তর ছাড়াও, ভারতীয় শ্রমিকদের অবৈধ স্থানান্তর বাংলাদেশের ফরেক্স রিজার্ভ পতনের প্রধান উৎস।
হুন্ডি সীমিত করতে এবং রিজার্ভেশন পুনরুদ্ধার করতে যে কোন বিশ্বাসযোগ্য পদক্ষেপ ভারতে ব্যাপক অবৈধ স্থানান্তর কার্যকরভাবে মোকাবিলা অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। কাজ শুরু করতে হবে সকল বিদেশী শ্রমিকদের বাধ্যতামূলক নিবন্ধন এবং বিদেশী দ্বারা অবৈধ কাজ করা এই ধরনের শ্রমিক এবং তাদের নিয়োগকারীদের শাস্তিযোগ্য অপরাধ।
আমাদের নির্বাচনে সরাসরি ভারতীয় হস্তক্ষেপের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসা এই অবৈধ শাসন থেকে এটা আশা করা যায় না। হুন্ডি সীমিত করার তাদের বর্তমান প্রচেষ্টা প্রায় এক মিলিয়ন অবৈধ ভারতীয় শ্রমিকদের দ্বারা হুন্ডি মাধ্যমে অবৈধ অর্থ স্থানান্তর সম্পর্কে একটি শব্দ অন্তর্ভুক্ত নয়।
অবৈধ সীমান্ত ক্রসিং এর অজুহাতে শত শত বাংলাদেশকে হত্যা করার আগে যখন ভারত বিএসএফ চোখের পলক পড়ে না তখন প্রায় লক্ষ ভারতীয় অবৈধভাবে বাংলাদেশে কাজ দখল করে আছে। আসলে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত দুই দেশের মধ্যে সবচেয়ে রক্তাক্ত সীমান্ত যারা দ্বন্দ্বে লিপ্ত নয়। ভারত বাংলাদেশের সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া তৈরি করেছে মিথ্যা দাবি করা বাংলাদেশী অভিবাসীদের ভারতে প্রবেশ প্রতিরোধ করার জন্য, এই শাসন বাংলাদেশে কর্মরত অবৈধ ভারতীয়দের বিরুদ্ধে একটি খোলা সীমান্ত নীতি বজায় রাখে। এমনকি মূলধারার মিডিয়াও এই বিষয়ে নীরব, যার ফলে গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় স্বার্থ ধরে রাখতে ব্যর্থ হচ্ছে।
ক্ষমতায় থাকার জন্য এই অবৈধ ফ্যাসিস্ট শাসন ভারতকে যে অনেক ছাড় দিয়েছে তার মধ্যে এটি একটি মাত্র। আশ্চর্যের কিছু নেই, শাসনের প্রধান বাহ্যিক সহযোগী এবং বাংলাদেশের মহান লুটপাটের বৃহত্তম সুবিধাভোগী হিসাবে, ভারত কঠোরভাবে এবং গোপনে এই তিক্ত শেষ পর্যন্ত শাসনকে সমর্থন করে যাবে। যখন একটি ধসে পড়ছে অর্থনীতি এবং জনপ্রিয় সমর্থন হারিয়ে যাচ্ছে আইসিইউতে শাসনকে ঠেলে দিয়েছে, তার ভারতীয় সমর্থকরা ভেন্টিলেটর হিসেবে কাজ করছে যাতে শাসনকে কৃত্রিমভাবে জীবিত রাখতে এবং এর ফলে জীবনের সব ক্ষেত্রে ভারতীয় দুর্গ বজায় রাখতে পারে। এন বাংলাদেশ।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ সরকারের উচিৎ গুরুত্ব দিয়ে বিদেশে অর্থ পাচারের বিষয়টি রোধ করা। তা না হলে বাংলাদেশে একটি তলাবিহীন ঝুড়ির দেশ হিসেবে আখ্যায়িত হবে, যেটা অনেক আগেই একজন বিদেশী অর্থনীতিবিদ করেছিলেন। তবে দুর্নীতিবাজের কারণে এই ধরনের অর্থনৈতিক সংকট সৃষ্টির কারন বলে জানিয়েছেন বিশ্লেষকেরা।

About bisso Jit

Check Also

এস. আলম না, হিরো আলমদেরই প্রয়োজন রয়েছে বাংলাদেশে: আসিফ নজরুল

হিরো আলমকে চেনেন না বর্তমান সময়ে বাংলাদেশে এ রকম লোকের সংখ্যা খুবই কমই আছেন। তিনি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *