Saturday , January 28 2023
Breaking News
Home / Countrywide / এবার প্রেমের টানে লক্ষীপুরে ছুটে এলেন ফিলিপাইনের সুন্দরী তরুণী

এবার প্রেমের টানে লক্ষীপুরে ছুটে এলেন ফিলিপাইনের সুন্দরী তরুণী

প্রেমের টানে বিদেশি তরুণ কিংবা তরুণীদের বাংলাদেশের ছুটে আসার ঘটনা এখন আর নতুন কিছু নয়। প্রেমের টানে তরুণ-তরুণীদের এভাবে বাংলাদেশ ছুটে আসা নিয়ে খবর প্রায় সংবাদমাধ্যমের শিরোনাম হয়। এবার তেমনই একটি ঘটনা ঘটেছে লক্ষ্মীপুরে। প্রেমের টানে এক সুন্দরী তরুণী লক্ষীপুরের একটি গ্রামে ছুটে এসেছেন। ঐ তরুনীর নাম জোয়ান ডিগুসমান লেগুমবাই। তিনি তার নিজের জন্মভূমি ছেড়ে নিজের ধ”র্ম ত্যাগ করে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রেমিক নাইমের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন।

গতকাল (শুক্রবার) বিকেলে শহরের একটি চাইনিজ রেস্তোরাঁয় জমকালো আয়োজনে তাদের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদী গ্রামে প্রেমিক নাঈমের বাড়িতে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান হয়। এদিকে বিদেশি পাত্রী দেখতে ভিড় করছেন স্থানীয়রা।

তার আগে গত ৩ জানুয়ারি ফিলিপাইন থেকে ওই তরুণী নাইমের বাড়িতে আসেন। মোঃ নাইমুর রশিদ লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদী গ্রামের বাসিন্দা নুর মোহাম্মদের ছেলে। তিনি মালয়েশিয়া প্রবাসী।

জানা গেছে, নাইমুর রশিদ মালয়েশিয়ার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। কাজের সুবাদে তার সাক্ষাৎ হয় তিনি ফিলিপাইনের আরনেসতা লেগুমবাই ও ইমেলদা লেগুমবাই দম্পতির মেয়ে যোয়ান ডিগুসমান লেগুমবাইয়ের সঙ্গে। পরিচয় থেকে শুরু হয় তাদের প্রেম। আর সেই ভালোবাসার কারণেই ধর্ম পরিবর্তন করে বাংলাদেশে পাড়ি জমান ফিলিপাইনের এই তরুণী। এখানে আসার পর তিনি ইসলাম ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে নতুন নাম রেখেছেন নাজিফা রশিদ আমিরা।

নাঈম জানান, গত ৮ বছর ধরে তাদের মধ্যে সম্পর্ক রয়েছে। এরই মধ্যে তারা বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ছুটি কাটাতে বাংলাদেশে আসেন। তিনি তার বাবা-মা এবং মেয়েটির বাবা-মায়ের সম্মতিতে তাকে বিয়ে করেন। ছুটি শেষে তারা মালয়েশিয়ায় ফিরে যাবেন।

যোয়ান বলেন, বাংলাদেশে আসার পর খুব ভালো লাগছে। এখানকার মানুষের সাথে সহজেই মিশতে পারছেন। তিনি বাংলাদেশের খাবার ও সংস্কৃতি খুব পছন্দ করেন। তিনিও বাংলাদেশে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে চান।

নাঈমের স্বজনরা জানান, উভয় পক্ষের সম্মতিতে তাদের বিয়ে সম্পন্ন হতে যাচ্ছে। ফিলিপাইনের ওই তরুণী আসার পর থেকেই সবার সঙ্গে বেশ সুন্দরভাবে মিলেমিশে চলছেন। এখানকার খাবার তার খুব ভালো লাগে। লোকজন তাকে দেখতে বাড়িতে ভিড় করছে। তিনি কখনো ইংরেজিতে, কখনো বাংলায় কথা বলছেন।

ফিলিপাইনের তরুণী ও লক্ষীপুরের ছেলের এই বিয়ে করার বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। তাদের দুজনকে দেখার জন্য দূর-দূরান্ত থেকে তাদের বাড়িতে ছুটে আসছে মানুষ। এ পর্যন্ত লক্ষ্মীপুরে এই ধরনের ঘটনা রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। সেখানে গত ছয় মাসে ৫ জন বিদেশি তরুণী প্রেমের টানে ছুটে এসেছেন।

About bisso Jit

Check Also

সারা দেশের ডিসিদের সতর্ক থাকার নির্দেশ, জানা গেল কারণ

বাংলাদেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট এমন যেখানে এক দল অন্য দলের সমালোচনায় মত্ত রয়েছে। নানা সময় অন্যদলের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *